কবিতা

ঈশানকোণ একটি সাহিত্যের ওয়েবজিন গ্রীষ্ম সংখ্যা মে ২০১৭ ইং 

অরুণিমা চৌধুরীর কবিতা

সাম্বা অথবা স্লাট শেমিং 


কেউ কেউ শব্দ বোনে 

নুনের আলপনা এঁকে বিষাদ বাড়ায়

কারো কারো শব্দের আড়াল কঠিন সামুদ্রিক ঝড়  


জল তলদেশ থেকে উঠে আসে জাহাজভর্তি আধপচা ভিসেরা 

কেউ কেউ নির্মম নুন পরিবেশক, নুনের জাহাজে ভর্তি জারানো মমির ভিড়... মমিদের কটা মুখ!


হাওয়া মোরগের অবস্থান সম্পর্কে সম্যক ধারণা

না থাকায় সমুদ্রঝড়ের মুখে ও

জলে নুনের ঘনীভবনে রহস্য ঘনীভূত হয়,  

রক্তে নুনের মাত্রা বেড়ে গেলে মধ্যযামে ভুল পথে চালিত হই


আমি নপুংসক, অর্ধনগ্ন, অবন্তিকা! পেট আর বুকে পালক ও পয়সা সাজিয়ে সাম্বা নাচি 


ভেসে যাওয়া কাঠের পাটাতন তখনও 

স্ট্রিপটিজ খেলে শরীরের বিপদজনক বাঁকে 

অভিজ্ঞ নাবিক হাতের চলন 

বোঝার চেষ্টা করে দোল খাই, দোল খাই আর 

খুলে ফেলি অপুষ্ট নুনজলের দাগ


ভয়াবহ দারুখন্ডে সাজানো নগ্নদেহী নুনের উপাচার, দণ্ডের চারপাশে হিসহিস করে নির্বিষ সাপের ঠোঁট.. কামড়ায় কিন্তু মারেনা


নাবিক লবণ সংরক্ষক শব্দের আড়ালে নুন বুনে ছায়ায় দাঁড়ায়, চাপা ক্ষতে ঘাম জমে

ঘনীভূত হয় শ্লেষ কান্নাজলে নুনের ঘনত্ব বাড়ে আচমকা ভেসে উঠি   


আসলে হাওয়া মোরগের অবস্থান পালটে গেলে যেকোন যাত্রাপথ দুর্গম হয়ে ওঠে


শব্দের আড়ালে বোধ, অথবা বোধের আড়ালে 

করুণ রসে জারিত হয় 

ভেসে যাওয়া কাঠের উপাখ্যান... ভাসমান প্রমোদভবন 


সবটাই কমলে কামিনী, আসলে এসমস্ত কিছুই 

দেখেন নি


লম্পট শব্দে শুধু পুরুষের অধিকার

অবন্তিকা! 


HOME

এই লেখাটা শেয়ার করুন