ছড়া

ঈশানকোণ একটি সাহিত্যের ওয়েবজিন হেমন্ত সংখ্যা নভেম্বর ২০১৬ ইং 

কবি কেনারাম

শঙ্কর দেবনাথ


কেনারাম কবি – তার কবিতার অঙ্গে –

ভয় নাড়া গয়নারা দোলে নানা রঙ্গে।

শব্দের শবদেহে তা তা থৈ চিত্তে –

বর্ণের বর-বউ মাতে রাতে নৃত্যে।


ছন্দেরা সন্দেহে বোল তোলে ধিন্‌ তা –

মিল এসে ঢিল ছোঁড়ে – নেই কোন চিন্তা।

হাব-ভাব বুঝে ভাব ড্যাবডেবে চোক্ষে-

ভাবে বস–যাবে গো সে কোন গোবি-মোক্ষে।


মাথা ভরা – খাতা ভরা গিজগিজে কাব্য-

পলি খেলে হোলি আর নদী হয় নাব্য।

কেনারাম কবি-কে না মানে এই বাক্যি!

কবিতার আদালতে দাদারাই সাক্ষী। 



একটি না ছড়া

শঙ্কর দেবনাথ


যার চোখে চাঁদ ছিল বাঁধভাঙা কিরণের-

তার চোখে পোড়ে আজ আগুনের পীড়নেই।

যার মনে পাখা ছিল, আঁকা ছিল কল্পনা

তার মনে হানা দেয় ডানাভাঙা গল্পরা।


যার বুকে নদী ছিল – যতি ছিল না ধারায়

তার বুকে নাচে সুখে অবিনাশী বাঁধারাই।

যার মুখে হাসি ছিল- বাঁশি ছিল সুস্বরের

তার মুখ দুখ দুখ তাঁতে মরু ঊষরেই।


যার ঘর ভরা ছিল জ্বরাহীন ফুলে ফুলে

তার ঘর জর্জর মৃত্যুর হুলে হুলে।

যে বায়ুতে প্রাণ ছিল – ঘ্রাণ ছিল পরাগের

সেই বায়ু আয়ু গিলে খায় ক্ষোভে ও রাগে।

জীয়নকাঠি
শঙ্কর দেবনাথ

নুন আনিতেই পান্তা ফুরোয়–কানটা ঝালাপালা-
নেই কিছু নেই–ভয় পিছু নেই–মনটা বলে–পালা।

চতুর্দিকেই ফতুর সবই–স্বস্তি নেই এক তিলও,
পুড়ছে দেহ–ঘুরছে মাথা–উড়ছে শকুন-চিলও। 

মন ভাল নেই–ক্ষণ ভাল নেই–জীবন বিষাদভরা–
এইভাবে আর ক’দিন যাবে ? বেঁচেও যেন মরা।

ভাবছি এবং কাঁপছি খেদে–হঠাৎ এসে খোকা,
ডাকলো–বাবা, আঁকলো বুকে জীয়নকাঠির টোকা।

স্বপ্ন নাচে চোখের কাছে–খোকন হাসে কোলে–
মন ভাল হয়–ঘর আলো হয়–কষ্টরা যায় চলে।


বাংলা আমার
শঙ্কর দেবনাথ

বাংলা আমার             স্বপ্ন খামার 
              মগ্ন ভালবাসা–
বুকের আশা-             মুখের ভাষা-
             সুখের আলো-আশা।

বাংলা আমার            বাবার ঘাম আর
               দাদার পদ্যরাশি-
মায়ের শাড়ি-             গাঁয়ের বাড়ি-
              ভায়ের-বোনের হাসি।

বাংলা আমার             রহিম-রাম আর
               সবার মিলনমেলা-
পাখির কূজন               ভ্রমর গু’জন-
               সুজন মাঝির ভেলা।

বাংলা আমার             কাঁঠাল-আম আর-
               তাল-সুপারির শাখি-
ধানের বুকে-               প্রাণের সুখে
                ঘ্রাণের মাখামাখি।

বাংলা আমার              রঙিন জামার
                পকেট ভরা ছড়া-
জীবন-ফাগুন-              চিতার আগুন-
                 শান্তিতে ঘুম পড়া।
                                                 HOME

এই লেখাটা শেয়ার করুন