কবিতা

ঈশানকোণ একটি সাহিত্যের ওয়েবজিন হেমন্ত সংখ্যা নভেম্বর ২০১৬ ইং 

নিষেধ

নীপবীথি ভৌমিক


ও বাড়িতে কোনোদিন পাখি বসেনি,

সারাদিন অযুত রহস্যাবৃত শান্ত মেঘদেশ  

যেন ঘুমিয়ে থাকে বাড়ির দেওয়াল সাজিয়ে---

পোকামাকড়ও বসেছে কি কখনো?

হয়তো বা তাও না।

জানলারা যেন অসহায়।

অপরিচিত মুখ নিয়ে আড়াল তুলে রাখে নিজের সাথে নিজপথে;

নীরব অহংকারের ঘুম  

সারাদিন বাড়ির দুই চোখ জুড়ে,

একদিন, ঝড়ের রাতে ঝড় হয়ে এসেছিলো

দাম্ভিক বাতাসঝড়,

শান্ত নীরব বাড়ি যেন অসহায় ঘুমন্ত চোখে বিঁধিয়ে ছিলো নিজেকে

তীক্ষ বিষের দহনে !

সকাল হতে দেখি বাড়ির সামনে হরিধ্বনি , উড়োখই-এর ওড়াওড়ি;

আজ পাখি বসেছে জানলার শার্সিতে। 

  


ভাবনা

নীপবীথি ভৌমিক


তুমি ভাবতেই পারো , আমি অপরাধী

ভাবতেই পারো আমি কোনো বিত্তশালী অহংকৃতা

কিংবা সুন্দরী না হয়েও অপরূপা মুগ্ধময়ী,


দামী মার্সিডিজ আমার নাই বা থাকলো ,

নাই বা থাকলো বিদেশী কোনো সুগন্ধী স্নান…

তবুও তুমি ভাবো আমি সমৃদ্ধির শিখরে বিরাজমান ।


কিংবা নিদেনপক্ষে এভাবেও ভাবতেও পারো

আমি সর্বহারা, অসহায় বা কোনো এক চরিত্রহীনা অন্ধ গলির মেয়ে !


আসলে জানতো , ভাবনাটা শুধুই তোমার,

তোমার ব্যক্তিগত মূলধন।

তাকে সুদ আর আসলের খেলায় জিতিয়ে ক্রমশ বাড়িয়ে চলো তুমি সুদ-আসল

চলতেই পারো তুমি

সেটাও তোমার ব্যক্তিগত ।


তাই তুমি শুধু ভাবো, ভাবো, 

আর ভাবনায় ডুবে থাকো

আমি চলি , চলি শুধুই চলি

নিজের মতো চলি নিজের পথে ।


এই লেখাটা শেয়ার করুন